Breaking News

প্রাণনাশের হুমকি, নিরাপত্তা চেয়ে পুলিশের দ্বারস্থ অভিনেতা জয়

রবিউল ইসলাম (রবি), সময়ের কণ্ঠস্বর- ভাইরাল হওয়া ছোট্ট শিশু নাঈমের সাক্ষাৎকার নিয়ে প্রাণনাশের শঙ্কায় রয়েছেন অভিনেতা ও উপস্থাপক শাহরিয়ার নাজিম জয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও দেশ-বিদেশের অসংখ্য নম্বর থেকে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। এ অবস্থায় এ অভিনেতা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন, তাই নিজের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে রাজধানীর রুপনগর থানা পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন।

মঙ্গলবার (০২ এপ্রিল) দুপুরে থানায় উপস্থিত হয়ে এ বিষয়ে সাধারণ ডায়েরি করেন জয়। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হুমকি ও হ্যাক হওয়া ফেসবুক আইডি উদ্ধারে সন্ধ্যায় ডিএমপির সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম ডিভিশন ইউনিটে গিয়ে একটি আবেদন করেছেন এ অভিনেতা।

এর আগে সর্বশেষ এক ভিডিও বার্তায় তার জীবন এখন হমকির মুখে দাবি করে জয় বলেন, আমি খুবই সাধারণ একজন মানুষ। আমাকে সে জায়গাটা আপনারা ক্ষতি করবেন না। এবং আমি মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সবার কাছে আমার জীবন ভিক্ষা চাই। কারণ আমি যে ধরনের থ্রেট পাচ্ছি, সে ধরনের থ্রেট নিয়ে আসলে বেঁচে থাকা খুবই মুশকিল।

জানতে চাইলে ডিএমপি’র কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম ডিভিশনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) নাজমুল ইসলাম সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, শাহরিয়ার নাজিম জয় আজ সন্ধ্যায় সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ দমন বিভাগ এ নিজের জীবন নাশের হুমকির প্রেক্ষিতে ও ফেইসবুক আইডি ডিজ্যাবল হওয়ার প্রেক্ষিতে অভিযোগ দায়ের করেন।

“আমরা বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখছি, আইডি উদ্ধার করার চেষ্টা চলছে এবং যারা জীবন নাশের হুমকি দিয়ে ক্রিমিনাল একটিভিটি করছে তাদের বিষয়ে অনুসন্ধান অব্যাহত রয়েছে। প্রাথমিকভাবে হুমকি দেয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে।”

উল্লেখ্য, সম্প্রতি নাঈম নামে এক শিশুর সাক্ষাৎকার নেন জয়। গত ২৮ মার্চ বনানীর এফআর টাওয়ারে আগুনের ঘটনায় এই নাঈম ফায়ার সার্ভিসের পানির পাইপ চেপে ধরে সবার নজর কাড়ে, প্রশংসা কুড়ায়। নাঈমের এই সাহসিকতায় খুশি হয়ে তার পরিবারকে চার লাখ টাকা দেয়ার ঘোষণা দেন এক অস্ট্রেলিয়াপ্রবাসী।

জয় তার সাক্ষাৎকারে নাঈমকে জিজ্ঞেস করেন, এই টাকা দিয়ে সে কী করবে। উত্তরে নাঈম বলে, চার লাখ টাকা সে এতিমখানায় দান করবে। এর কারণ জানতে চাইলে নাঈম বলে, খালেদা জিয়া এতিমের টাকা আত্মসাৎ করেছিলেন। তাই সে টাকাটা এতিমখানায় দিতে চায়।

এ ঘটনার পর তীব্র সমালোনার মুখে পড়েন শাহরিয়ার নাজিম জয়। নাঈমকে জয়ের এ ধরনের প্রশ্ন করাটাকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত উল্লেখ করেন ফেসবুক ব্যবহাকারীরা।

তারা বলেন, ওই শিশুটি নিজ থেকে এসব কথা বলেনি। উপস্থাপক জয় শিশু নাঈমকে কথাগুলো শিখিয়ে দিয়েছেন। অনুষ্ঠানে শিশুটির কথা বলার ধরনেই তা স্পষ্ট।

পরে সাংবাদিক ও গায়ক আমিরুল মোমেনিন মানিকও নাঈমের সাক্ষাৎকার নেন। সেখানে তিনি নাঈমকে খালেদা জিয়া সম্পর্কে দেয়া বিতর্কিত ওই উত্তর সম্পর্কে জানতে চান। নাঈম তখন বলে, তাকে এই কথা শিখিয়ে দিয়েছিলেন আগে যিনি সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন। অর্থাৎ অভিযোগের আঙুল তোলা হয় জয়ের দিকেই।

তবে শাহরিয়ার নাজিম জয় গণমাধ্যমকে বলেছেন,  ‘বিশ্বাস করুন, আমি নাঈমকে কোনো কথা শিখিয়ে দেইনি। এমন কি আমার ইউনিটের কেউই তাকে, কোন ধরনের কথা শিখিয়ে দেয়নি। এতটুকু বাচ্চাকে আমার শিখিয়ে দেওয়ার কিছু নেই।’

তিনি বলেন, এ ঘটনার পর দেশ-বিদেশ থেকে বিভিন্ন নম্বরের মাধ্যমে আমাকে হুমকি দেওয়া হচ্ছে। আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এরইমধ্যে আমার ফেসবুক আইডিও হ্যাক করা হয়েছে। তাই নিজের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করেছি।

 

About admin

Check Also

আ’লীগে অভ্যান্তরিন কোন্দল নিয়ে মুখ খুললেন শেখ হাসিনা

টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ। এসময় দলের ভেতর স্বস্তি আর সৌহার্দ্য থাকার কথা। কিন্তু …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *